শুক্রবার, 19 জুলাই, 2024

অভিবাসন ঠেকাতে ইইউ সন্ত্রাসীগোষ্ঠীদের টাকা দেয়, একই পথে আগ্রহী যুক্তরাজ্যও 

কেনান মালিক

‘‘দয়া করে সাহায্য করুন, হতাশার কারণে আজ এক ব্যক্তি পেট্রোল দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন’’- আইরিশ গণমাধ্যম দ্য আইরিশ টাইমস এর সংবাদকর্মী স্যালি হেইডেন ২০১৮ সালের অক্টোবরে এমন একটি বার্তা পেয়েছিলেন। শ্যালি হেইডেন লিবিয়ায় আটকে থাকা শরণার্থীদের কাছে কয়েকজন বিশ্বস্ত বহিরাগতদের একজন। ওই বার্তাটি ছিলো মূলত আব্দুল আজিজ নামের একজন শরণার্থীকে নিয়ে। যিনি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আল-শাবাব কর্তৃক পূর্ব আফ্রিকায় চালানো নৃশংসতার হাত থেকে বাঁচতে তার আদি নিবাস সোমালিয়া ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন।

মাইলের পর মাইল মরুভূমি হেঁটে বিপজ্জনক যাত্রার পর আব্দুল আজিজ আটক হয়েছিলেন। তাকে লিবিয়ার ত্রিপোলির একটি ভয়ঙ্কর কারাগার ত্রিক আল-সিক্কায় বন্দী করা হয়েছিল। কেন? কারণ ইউরোপে সম্ভাব্য অভিবাসী হিসেবে বিবেচিত কাউকে আটক করতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন লিবিয়ান মিলিশিয়াদের মিলিয়ন মিলিয়ন ইউরো প্রদান করে। লিবিয়াজুড়ে অন্যান্য অনুরূপ কারাগারের মতো ত্রিক আল-সিক্কা হলো ক্ষুধা, রোগ, মারধর, ধর্ষণ, নির্যাতন এবং মৃত্যুর জন্য উপযুক্ত এক স্থান।

দীর্ঘ নয় মাস কারাভোগের পর আবদুল আজিজ এতটাই হতাশায় আক্রান্ত হয়েছিলেন যে, তিনি একটি জেনারেটরে জ্বালানি দেওয়ার জন্য ব্যবহৃত পেট্রোল দিয়ে নিজের শরীর ভিজিয়ে একটি দিয়াশলাই জ্বালিয়ে দিয়েছিলেন। স্যালি হেইডেনই একমাত্র সাংবাদিক, যিনি তার মৃত্যুর খবর বহির্বিশ্বের সামনে প্রকাশ করেছিলেন।

আমি জানি না যুক্তরাজ্যের অভিবাসন মন্ত্রী রবার্ট জেনরিক আব্দুল আজিজের সম্পর্কে জানেন কিনা। গত সপ্তাহে তিনি ভূমধ্যসাগরের (যদিও লিবিয়া নয়) পার্শ্ববর্তী দেশগুলি পরিদর্শন করেন। তার এ সফরের লক্ষ্য ছিলো: রাজনৈতিক নেতাদেরকে আশ্রয়প্রার্থী এবং ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেওয়া অনথিভুক্ত অভিবাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে উৎসাহিত করা।

জেনরিক ছিলেন ইইউ রাজনীতিবিদদের মধ্যকার মধ্যস্থতাকারী-যারা এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এই অঞ্চলের কার্যত প্রতিটি জবরদস্তিকারী শক্তিগুলির সঙ্গে চুক্তি করে চলেছে এবং ইউরোপগামী অভিবাসীদের আটকে রাখার জন্য তাদের উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থায়ন করছে।

এই চুক্তিগুলি চোরাচালান চক্রকে দুর্বল করার ক্ষেত্রে সামান্য ভূমিকা হয়তো রেখেছে। কিন্তু আশ্রয়প্রার্থী এবং অভিবাসীদের জন্য এবং উত্তর-পূর্ব আফ্রিকা এবং সাহেল উভয়ের জন্যই বিপর্যয়কর পরিস্থিতি তৈরী করেছে। পেট্রোল ঢেলে নিজেকে পুড়িয়ে মারা আব্দুল আজিজের কয়লা হয়ে যাওয়া শরীর মূলত এই চুক্তির মানবিক মূল্যের একটি অনুস্মারক হিসেবে বিবেচিত।

পশ্চিমা হস্তক্ষেপে লিবিয়াকে ছিন্নভিন্ন করার পর মিলিশিয়া এবং যুদ্ধবাজদের সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়নের চুক্তি, পরবর্তীতে আফ্রিকার জন্য ২০১৫ সালের নভেম্বরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ইমার্জেন্সি ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করা হয়। এর কারণ ছিলো সিরিয়ার যুদ্ধ তখন ইউরোপের কেন্দ্রে অভিবাসীদের একটি সুক্ষ্ম ঢল ও আতঙ্ক সৃষ্টি করেছিল।

খার্তুম প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইথিওপিয়া, ইরিত্রিয়া, সুদান এবং দক্ষিণ সুদানসহ পূর্ব আফ্রিকার দেশগুলিতে আকৃষ্ট হয়েছিল। তুরস্ক এবং নাইজারের মতো দেশগুলির সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে-ইইউ অ-ইউরোপীয় দেশগুলিকে অভিবাসন পুলিশ হিসাবে কাজ করতে প্ররোচিত করার জন্য বিলিয়ন বিলিয়ন ইউরো বিতরণ করেছে৷

ফলস্বরূপ আটলান্টিক থেকে লোহিত সাগর, ভূমধ্যসাগর থেকে সাহেল পর্যন্ত একটি বিশাল অপহরণ এবং আটক বাণিজ্যের সৃষ্টি হয়েছে। অভিবাসীদের বন্দি করে রাখার জন্য কারাগার, গুদামঘর, এমনকি চিড়িয়াখানাগুলিকে পুনরায় সাজানো হয়েছে।

আরো পড়ুন : যুদ্ধোত্তর ব্রিটেনে দক্ষিণ এশীয় প্রবাসীদের একাকিত্বের গল্প

২০২০ সালে একটি ফাঁস হওয়া ইইউ এর একটি স্মারকপত্রে স্বীকার করা হয় যে, অভিবাসীদের আটক করা এখন “একটি লাভজনক ব্যবসায়িক মডেল”। লিবিয়ায় মিলিশিয়া এবং মানব পাচারকারীরা নিজেদেরকে “কোস্টগার্ড” হিসাবে পুনর্গঠিত করেছে, যারা ইইউ দ্বারা প্রশিক্ষিত। তাদেরকে সমুদ্র থেকে অভিবাসীদের ধরতে এবং লিবিয়ার আটকে রাখতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে অর্থায়ন করা হয়।

নীতিনির্ধারকদের যারা ‘সার্বভৌমত্ব রক্ষায়’ দারুণ সঞ্চয় করেন, তারা দরিদ্র দেশগুলোর সার্বভৌমত্বকে পদদলিত করে খুশি হন।

জাতিসংঘের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, ত্রিক আল-সিক্কা এবং অন্যান্য আটক কেন্দ্রে, “অভিবাসীদের বিরুদ্ধে হত্যা, দাসত্ব, নির্যাতন, ধর্ষণ এবং অন্যান্য অমানবিক কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয়।

সর্বোপরি, ইইউ হলো, সেই সংস্থা যে ইউরোপে “অভিবাসন পরিচালনা” করার জন্য সুদানের প্রাক্তন নেতা ওমর আল-বশিরকে অর্থ দিয়েছে, যিনি যুদ্ধাপরাধের জন্য আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত কর্তৃক অভিযুক্ত। জানজাউইদ, একটি মিলিশিয়া বাহিনী, যেটি দারফুরে গণহত্যার সহিংসতা চালিয়েছিল। বাহিনীটি এখন নিজেদের র‌্যাপিড সাপোর্ট ফোর্স বলে অভিহিত করে এবং ইইউ-এর ফরমায়েশ মেনে অভিবাসীদের আটক করে।

অভিবাসন রোধে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পদ্ধতি স্থানীয় জনগণের জন্যও বিপর্যয়কর হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইউরোপের অভিবাসন নীতির বাহ্যিকীকরণের ফলে অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা, সম্প্রদায়ের বিচ্ছেদ, মানব পাচারকারী এবং ইসলামি মিলিশিয়াদের জন্য নতুন সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

নাইজারের কথাই ধরুন, সাহেলের একটি দেশ, লিবিয়াকে অবরুদ্ধ করেছে। এটি বিশ্বের ১০টি দরিদ্রতম দেশের একটি। আর একারণেই এটিকে “ইউরোপের অভিবাসন গবেষণাগারে” পরিণত করা হয়েছে। মাথাপিছু হিসাবে ইইউ সাহায্যের বৃহত্তম প্রাপক দেশ এটি। যার বিনিময়ে নাইজার কর্তৃপক্ষ ইইউ-এর অভিবাসন সম্পর্কিত চাহিদাগুলি পূরণ করতে গিয়ে দেশীয় নীতিগুলিকে বিকৃত করতে বাধ্য হয়।

আরো পড়ুন : ব্রিটেনের কাছে কি আফগানদের থেকে কুকুর-বিড়াল বেশি মূল্যবান?

ইউরোপের মাধ্যমে হুমকির সম্মুখীন হওয়ার অনেক আগেই অভিবাসন সাহেল জীবনে বোনা হয়েছিল। অর্থনীতির বেশিরভাগ অংশই মানুষের আন্দোলনের সেই ঐতিহ্যের মধ্যে নিহিত। ব্রাসেলস-প্রবর্তিত নীতি শুধুমাত্র ইউরোপগামী অভিবাসনে বাধা হিসেবে কাজ করেনি বরং ধ্বংস করেছে

জেনরিক গত সপ্তাহে টাইমসকে বলেছিলেন, ব্রিটেন, “মানব-চোরাচালানকারী চক্রের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে” যাতে অভিবাসীদের “বিপজ্জনক এবং অপ্রয়োজনীয় যাত্রা” করা থেকে বাঁচানো যায়। এটি আফ্রিকান দেশগুলির মঙ্গলের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের অভিবাসন নীতির উপস্থাপনার মতো নৈতিকভাবে সৎ।

জেনরিকের আসল লক্ষ্য হলো অন্যান্য দেশগুলিকে ব্রিটেনের হয়ে অভিবাসন পুলিশ হিসাবে কাজ করার জন্য চাপ দেওয়া। ব্রিটেন হয়তো ইইউ ত্যাগ করেছে, কিন্তু ইউরোপীয় ইউনিয়নের অভিবাসন মানসিকতা ব্রিটিশ নীতিতে দৃঢ়ভাবে রয়ে গেছে।

লেখক: অবজারভার এর কলামিস্ট

সূত্র: গার্ডিয়ান

Get in Touch

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Related Articles

অভিবাসীর সঙ্গে থাকুন

10,504FansLike
2FollowersFollow
96SubscribersSubscribe

সাম্প্রতিক ঘটনা