বুধবার, 12 জুন, 2024

চলচ্চিত্র ‘মাদার অ্যান্ড সান’ : বাস্তুচ্যূত মা-ছেলের জটিল সম্পর্কের গল্প

বাস্তুচ্যূত হয়ে একটি ছেলে তার ভাই ও মায়ের সঙ্গে আফ্রিকা থেকে ফ্রান্সে চলে আসে। এরপর তারা দিশেহারা হয়ে পড়ে। তারা একের পর এক প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে থাকে। তাদের জীবনের ঘটে যাওয়া এই সব ঘটনারই প্রতিচ্ছবি ‘মাদার অ্যান্ড সান’ চলচ্চিত্র। এটি একটি ধ্যানমূলক আগমনের গল্প।

‘মাদার অ্যান্ড সান’ খুব জটিল এবং বেদনাদায়ক ধরণের ‘বয়সের আগমন’ সম্পর্কে নির্মিত একটি চলচ্চিত্র হতে মনে হতে পারে। ‘বয়স আগমনের’ উপর একটি ধ্যানমূলক চলচ্চিত্র, যা বাস্তবে কখনও নাও ঘটতে পারে। চলচ্চিত্রটি শৈশব এবং যৌবন-এর নির্দোষতা ও অভিজ্ঞতাকে তুলনা করে। বর্তমান এবং অতীতের মধ্যে অলিক বিভাজন রেখার পার্থক্য বা তুলনাকে তুলে ধরে।

একটি ছেলে তার মাকে মনে করে : তার বিপথগামী আবেগ, তার প্রেমিক, তার অসুখিভাব- যা সে এখন দেখতে পারে কিন্তু তখন পারেনি। ১৯৯০ এর ফ্রান্সে আইভরি কোস্ট থেকে অভিবাসী হিসাবে সে এবং তার ভাই তার সঙ্গে বেঁচে থাকার জন্য যে লড়াই করেছে সেটার অভিজ্ঞতা ভয়াবহ ছিলো। অন্য দুই ভাই রহস্যজনকভাবে হারিয়ে গিয়েছিলো।

চলচ্চিত্রের আখ্যানটি শেষ হয় মা ও ছেলের প্রাপ্তবয়স্কদের সঙ্গে সাক্ষাতের মাধ্যমে। যদিও এই দুই ব্যক্তি সম্ভবত একে অপরকে কখনই দেখতে পাবে না; কখনই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না যে, এটি ক্ষমা বা অভিযোগের জন্য একটি প্রাপ্তবয়স্ক মুহূর্ত, বা প্রেমের দ্বারা চাপিয়ে দেওয়া নীরবতার বোঝা শেষ পর্যন্ত মিটে গেছে কিনা।

আরো পড়ুন:

চলচ্চিত্র ‘ইলেভেন ডেইজ ইন মে’ : ফিলিস্তিনি শিশুদের হত্যা না করলে ঘুম আসে না ইসরায়েলি সেনাদের

চলচ্চিত্রে রোজ অ্যানাবেল লেংরোনে অসাধারণভাবে অভিনয় করেছেন। যিনি আবিদজান থেকে প্যারিসে তার দুই প্রাণবন্ত ছেলে জিন এবং আর্নেস্টের সঙ্গে বসবাস করতে এসেছেন। এখানে সিডি ফোফানা এবং মিলান ডুকানসি ছোট বাচ্চাদের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তারপর স্টেফান বাক এবং কিশোর বয়সে কেনজো সামবিন। তারা সবাই এক আত্মীয়ের সঙ্কুচিত ফ্ল্যাটে অবস্থান করছে। যে রোজের উদ্ভট, অকৃতজ্ঞ ‘রাজকন্যা’ মনোভাবের জন্য প্রায় প্রথম থেকেই বিরক্ত। এবং সে তার নাক ঘুরিয়ে আপাতদৃষ্টিতে সুন্দর অদম্য পুরুষটির সঙ্গে সে রোজকে সেট করে, যার নাম জুলিয়াস সিজার (জিন-ক্রিস্টোফ ফলি)। অলৌকিকভাবে তিনি দুই সন্তানের সঙ্গে একজন নারীকে নিতে ইচ্ছুক ছিলেন।

পরিবর্তে রোজ শ্বেতাঙ্গ পুরুষদের সঙ্গে ডেট করে। সে তার কাজের হোটেল রুম পরিষ্কার করার মাধ্যমে দেখা করে। এবং স্বরটি সম্ভবত হোটেল মালিক নিজেই সেট করেছেন। যিনি একটি বিনোদনমূলক উদ্ভট ক্রমানুসারে তার কর্মীদের সপ্তাহান্তে কিছুটা বিচ্ছিন্ন ‘বন্ডিং রিট্রিট’ এ আমন্ত্রণ জানান। প্রথমে সেখানে নির্মাণ কর্মী ম্যালিক (মাজদ মাস্তৌরা) এবং তারপরে থিয়েরি (থিবাউট এভারার্ড) একজন চিন্তাশীল, পরিপক্ক ব্যক্তি (অনুমিতভাবে তার স্ত্রীর কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন); যার সঙ্গে রোজ ছেলেদের রুয়েনে থাকতে নিয়ে যায়।

কিন্তু প্রথম থেকেই এটি একটি ভাঙা পরিবার : থিয়েরি দীর্ঘ সময়ের জন্য দূরে থাকে এবং রোজও প্যারিসে কাজ করে। প্রাথমিকভাবে জিন হলেন প্রতিশ্রæতিশীল যার মধ্যে বিমানের পাইলট হওয়ার উচ্চাকাঙ্খা রয়েছে। তবুও আর্নেস্ট একজন প্রাপ্তবয়স্ক হিসাবে আহমেদ সিল্লা অভিনয় করেছেন। যার জন্যে তিনি প্যারিসে একটি অনুমানযোগ্য মর্যাদা অর্জন করবেন।

আরো পড়ুন:

প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ফ্লি: স্বদেশ আর ভিটেমাটি হারানো এক শরণার্থীর ত্যক্ত স্মৃতিকথা

রোজের গল্প এমন যে, একজন ভাবছেন তাদের এইসব সমস্যার মীমাংসা করা উচিত কিনা। অর্থাৎ একজন পুরুষের জন্য একটা বিষয় মীমাংসা করা উচিত; যে তাকে স্বামী হিসাবে গ্রহণ করবে বা পুরো ধারণার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করবে। তার ছেলেরাও ভাবছে কিভাবে তারা পৃথিবীতে বসতি স্থাপন করতে পারে! এখানে কি তাদের জন্য কোন জায়গা আছে? বিশেষ করে রোজের পুরো অস্তিত্বটা ভীষণ অস্থির? রোজ কি তাদের মধ্যে তালগোল পাকিয়েছে বা তাদের হতাশ করেছে, নাকি একজন ত্রুটিপূর্ণ ব্যক্তি হিসাবে তার সেরাটা করেছে-সে অন্তত এমন একজনের উদাহরণ দিয়ে তাদের উপস্থাপন করেছে; যে বেঁচে থাকতে চেয়েছিলো?

যখন তারা ছোট বাচ্চার অভিনয় করে, তখন রোজ তাদের কখনই কাঁদতে বলে না। প্রাপ্ত মতামতে অবশ্যই রোজ ভুল যে হবে। কিন্তু আপনার আবেগ সম্পর্কে এমন কিছু প্রকাশ করা হচ্ছে, যা শুধু স্বচ্ছল, মধ্যবিত্ত ফরাসি লোকেরাই বহন করতে পারে? চলচ্চিত্রটি আর্নেস্ট এবং জিনের অস্তিত্বকে পর্যবেক্ষণ করে। কারণ তারা তাদের মায়ের মুখোমুখি হওয়ার সঙ্গে একই ধরনের সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে। যদিও কিছু সুবিধার জন্য সে তাদের জন্য সুরক্ষিত করেছে। সমান্তরাল সংগ্রাম চলছে, আর তিনজনেরই অদম্য সাহস রয়েছে।

সূত্র: গার্ডিয়ান

Get in Touch

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Related Articles

অভিবাসীর সঙ্গে থাকুন

10,504FansLike
2FollowersFollow
97SubscribersSubscribe

সাম্প্রতিক ঘটনা